এস. এম. বেলাল: একজন ফ্রিল্যান্সার থেকে একজন উদ্যোক্তার যাত্রা

Home Blog Single

এস. এম. বেলাল: একজন ফ্রিল্যান্সার থেকে একজন উদ্যোক্তার যাত্রা

ডিজিটাল মার্কেটিং এখন তরুণদের ভবিষ্যৎ এর নতুন দিগন্ত। বিভিন্ন ব্রান্ডগুলো এখন প্রচলিত ধারার মার্কেটিং থেকে সরে এসে ডিজিটাল মার্কেটিং শুরু করেছে।

বর্তমান বিশ্বে তথ্য ও প্রযুক্তির যে বিপ্লব এসেছে তা অবিশ্বাস্য। যেকোনো তথ্য বের করা বর্তমানে এতোটাই সহজ যে কারনে সাধারণ মানুষজন এখন ইন্টারনেট এবং অনলাইন সামাজিক প্ল্যাটফর্মগুলিতে বেশি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। সেখান থেকে পাওয়া তথ্যগুলোকেই তারা বেশি মূল্য দিচ্ছে। এই বিষয়টিকে মাথায় রেখেই এস. এম. বেলাল ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে ভাবনা শুরু করেন। মার্কেটিং বিষয়ের একজন শিক্ষার্থী হিসেবে গ্রাজুয়েশনের সময়কালেই এই ব্যাপারগুলো তাকে ভাবায় এবং তাকে ডিজিটাল মার্কেটিং এর কাজ করতে অনুপ্রাণিত করে।

এস. এম. বেলালের পরিচয়

বেলালের অনার্সে পড়ার সময়ই ফ্রিল্যান্সিংয়ে পথচলা শুরুটা হয়। ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়রদের সাথে বিভিন্ন সাব-কন্ট্রাক্টের কাজ করা শুরু করেন। এর পরে আমি নিজে থেকেই বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করা শুরু করেন। বেলাল বলেন, ‘প্রথমে আমি ই-ল্যান্সের সাথে কাজ করি। ২০১৩ সালে, আমার গ্রাজুয়েশন শেষ হওয়ার পর আমি আমার ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং বেছে নিই এবং আমার কাজের সম্পূর্ণ সময় এটির উপর ব্যয় করা শুরু করি। তারপর ধীরে ধীরে, আমি ফ্রিল্যান্সিং থেকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এবং সিপিএ মার্কেটিংয়ে যাওয়া শুরু করি। আমি আন্তর্জাতিক বাজারের জন্য কিছু কমপ্লিমেন্ট অংশীদার নিয়ে প্রিন্ট অন ডিমান্ড ব্যবসা শুরু করি। 

বর্তমানে এস. এম. বেলাল টেক্সোর্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করছেন। একই সাথে তিনি ‘গিয়ারলঞ্চ’ নামক একটি মার্কিন কোম্পানির কান্ট্রি ম্যানেজার হিসাবেও কাজ করছেন।

কেন ডিজিটাল মার্কেটার হওয়া উচিত?

ডিজিটাল মার্কেটিং প্রযুক্তিবিদ, ব্যবসায়ী এবং সৃজনশীল মানুষের কাছে একটি আকর্ষণীয় ক্যারিয়ার হতে পারে। এর পেছনে নানান কারণ আছে। ডিজিটাল মার্কেটিং একটি রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা, যা থেকে প্রতিনিয়ত নতুন কিছু শেখা  সম্ভব। বেশির ভাগ লোকই তাদের শখ থেকে এটি শুরু করে যা ধীরে ধীরে তাদের আবেগে পরিনত হয়। বেলাল বলেন, ‘বর্তমানে, প্রতিটি ব্যাবসা অনলাইন বিশ্বে নিজেদের একটি জায়গা প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে যা ডিজিটাল মার্কেটারদের চাহিদা আরও বাড়িয়ে তোলে। এই কারণেই ডিজিটাল মার্কেটিং বর্তমান বিশ্বের অন্যতম বহুমুখী কাজগুলোর মধ্যে একটি। ডিজিটাল মার্কেটিং ইন্ডাস্ট্রি এখন খুবই ক্রমবর্ধমান। যে কারণে এখান থেকে প্রতিনিয়ত নতুন কিছু শিক্ষা নেয়ার ও ক্যারিয়ারে উন্নতি করার সুযোগ রয়েছে।’

ডিজিটাল মার্কেটার হওয়ার প্রয়োজনীয় দক্ষতা

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে কাজ করার আগে অবশ্যই দক্ষতা নিয়ে মার্কেটে প্রবেশ করা উচিত। দক্ষতার প্রশ্নে বেলাল সবার আগে কমিউনিকেশন স্কিলের কথা বলেন। এছাড়া তার সাথে আলাপনে উঠে আসে দক্ষতার নানান বিষয়।

ডিজিটাল সাইকোলজি – ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে যেই প্রথম মৌলিক দক্ষতা আপনার আয়ত্ত করা প্রয়োজন সেটা হচ্ছে ডিজিটাল সাইকোলজি। মানুষ এমন এক জটিল প্রজাতি যারা তাদের অবচেতন মন দ্বারা পরিচালিত হয়। হাভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের জমা দেয়া একটি প্রতিবেদন অনুসারে ক্রয় সিদ্ধান্তের ৯৫% সিদ্ধান্ত নেয়া হয় অবচেতন ভাবে। তাই ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য গ্রাহক এবং তাদের মন বোঝা জরুরি।

ডিজিটাল অ্যানালিটিক্স – পরবর্তী গুরুতর দক্ষতা যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ সেটা হলো ডিজিটাল অ্যানালিটিক্স। আমরা বর্তমানে ডেটা-চালিত বিশ্বে বাস করছি। এই ডেটাকে মার্কেটিং এর কাজে ব্যবহার করা শিখতে হবে। এজন্য এই দক্ষতা অর্জন করা বাধ্যতামূলক। ডেটা এবং তথ্য বিশ্লেষণ এবং ব্রেক-ডাউন করার দক্ষতাকে ডিজিটাল অ্যানালিটিক্স বলা হয়।

বেসিক এসইও – এটি আপনার ওয়েবসাইটটি কীভাবে ভাল করছে বা সার্চ ইঞ্জিনের রেজাল্ট পেজগুলি (এসইআরপি) কতটা ভাল রয়েছে তা বোঝায়। এমনকি আপনি এসইও বিশেষজ্ঞ না হলেও, যদি একটি দুর্দান্ত ডিজিটাল বিপণনকারী হতে চান বা কেবল একটি অনলাইন ব্যবসা করতে চান তবে আপনার এসইওর কিছু প্রাথমিক জ্ঞানের প্রয়োজন। এসইও সেই সকল বিষয়বস্তুর উপর ফোকাস তৈরিতে সহায়তা করে যেগুলো মানুষ খোঁজে, সুতরাং আপনার যদি এসইওর উপর কোনো ধারণা থাকে আপনি আপনার ওয়েবসাইট যেকোনো বাহ্যিক সাহায্য ছাড়াই পরিবর্তন করতে পারবেন।

বিজ্ঞাপন – প্রতিটি ডিজিটাল মার্কেটারের জন্য এটি অন্যতম প্রয়োজনীয় এবং বাধ্যতামূলক দক্ষতা। দর্শকদের কাছে দৃশ্যমান বিজ্ঞাপনের সবচেয়ে সাধারণ ফর্ম হলো সোশ্যাল মিডিয়া বিজ্ঞাপন। সার্চ ইঞ্জিন এডভারটাইজমেন্ট বিজ্ঞাপনের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ শাখা যেখানে আপনি সার্চ ইঞ্জিন রেসাল্ট পেইজগুলিতে বিজ্ঞাপন রাখতে পারেন। এছাড়াও ওয়েব পেইজগুলিতে বিভিন্ন দেশীয় বিজ্ঞাপন, প্রদর্শন বিজ্ঞাপন এবং ব্যানার বিজ্ঞাপন ইত্যাদি স্থাপন করা সম্ভব।  ডিজিটাল মার্কেটারের জন্য প্রয়োজনীয় প্রাথমিক পর্যায়ের কিছু দক্ষতা রয়েছে যেটির কমপক্ষে ‘বেসিক’ টা জানা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ফ্রন্ট-এন্ড কোড, ভিডিও মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, ডিজিটাল প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদির মতো দক্ষতাও আপনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে

 

SM Bel

সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা

আরামদায়ক জীবনযাত্রার জন্য লোকেরা আধুনিক হচ্ছে। আর দ্রুত ডিজিটাল ডিভাইসগুলিতে আরও অভ্যস্ত হচ্ছে। এই অভ্যাস ভবিষ্যতে বাড়বে ছাড়া কমবে না। আর তাই ডিজিটাল মার্কেটিং এর সুযোগ কেবলই বাড়ছে। ডিজিটালাইজেশন এবং প্রযুক্তিগত অগ্রগতি যেহেতু খুব দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে, ব্যবসায়ীরা সর্বদা তাদের সংস্থাগুলির জন্য সেরা ডিজিটাল মার্কেটারের সন্ধান করে।

বেলাল বলেন, ‘তারা এমন দক্ষ কর্মচারীদের সন্ধান করে যা তাদের সংস্থাগুলির দক্ষতার শূন্যস্থান পূরণ করতে পারে এবং বিভিন্ন ব্যবসায়িক উদ্দেশ্য যেমন নেতৃত্ব, উপার্জন এবং ব্র্যান্ডের এক্সপোজারকে পরিচালনা করতে পারে। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের ক্যারিয়ার বেশ মজাদার, চ্যালেঞ্জিং এবং বহুমুখী। পেশা নিষ্ঠা ও আবেগ নিয়ে কাজ করলে সাফল্য নিশ্চিত। ক্রমাগত প্রবৃদ্ধির হার অনুসারে ভবিষ্যতে এবং বিশ্বব্যাপী ডিজিটাল মার্কেটিং উজ্জ্বল ভবিষ্যতের পূর্বাভাস দিচ্ছে যা ভবিষ্যতে মার্কেটিং শিল্পের উপর আধিপত্য বিস্তার করবে। গত বছর ২০১৯ সালে, বিশ্বব্যাপী ব্যবসাগুলি পুরো বছর জুড়ে ৩০০ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ করেছে।’ তিনি আরো জানান, যদিও আমরা বিশ্বব্যাপী মহামারীর মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি তবুও ডিজিটাল মার্কেটিং শিল্পের বিকাশ পূর্ববর্তী বছরগুলির তুলনায় অনেক বেশি ত্বরান্বিত হয়েছে। এই সময়ে ছোটো-বড় অনেক ব্যাবসাই অনলাইন থেকে খুব সহজেই পরিচালিত হয়েছে এমনকি অনেকে তাদের  ব্যাবসার একটি নির্দিষ্ট স্কেল তৈরি করতেও সক্ষম হয়েছিলো। তারা তাদের ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশলকে কতটা কার্যকরভাবে পরিচালিত করছে সেটির উপরেই তাদের সাফল্য নির্ভর করে। চলমান মহামারীর কারনে চলতি বছরে কমপক্ষে প্রায় দশগুণ অনলাইন গ্রাহকদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। অনুমান করা হয়েছে যে সামগ্রিক ভাবে এই ডিজিটাল মার্কেটিং ইন্ডাস্ট্রি কমপক্ষে আরও ১২.৮% বৃদ্ধি পাবে অথবা তার চেয়ে আরও বেশি। তাই বাংলাদেশী বাজারেও ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে উৎসাহী ব্যাক্তিদের জন্য রয়েছে পূর্ণ সুযোগ। আজকাল প্রায় প্রত্যেকেরই বাসায় ইন্টারনেট এক্সেস রয়েছে। ২০২০ সালের অক্টোবরে বিটিআরসি প্রকাশিত সর্বশেষ প্রতিবেদনে দেখা যায় যে, ১৬০ মিলিয়ন জনসংখ্যার এই দেশের প্রায় ১১০.৭৬২ মিলিয়ন মানুষ ইন্টারনেট ব্যাবহার করে। এর মানে পুরো জনসংখ্যার ৬৮%  এরও বেশি মানুষের বাসায় ইন্টারনেট এক্সেস রয়েছে, যা ডিজিটাল মার্কেটিং এর ব্যবসাকে একটি লাভজনক ধারণা হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে। ডিজিটাল মার্কেটিং কখনোই শেষ হবে না যদি না যোগাযোগ প্রযুক্তি পুরোপুরি ভাবে শেষ হয়ে যায়। ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কোনো নির্দিষ্ট সীমাবদ্ধতাও নেই। আপনি যতবেশি সৃজনশীল এবং উৎপাদনশীল, আপনার সফল ডিজিটাল মার্কেটার হওয়ার সম্ভাবনা ততো বেশি।

নতুনদের জন্য পরামর্শ

আমরা বেলালের কাছে পরামর্শ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ডিজিটাল মার্কেটিং একটি বিশাল জায়গা এবং কখনও কখনও এটিতে মানিয়ে নেওয়াও বেশ কঠিন হয়ে পরে। এজন্য আমি এমন কিছু পরামর্শ তুলে ধরতে চাই যা ডিজিটাল মার্রকেটিংয়ের জগতে প্রবেশ করতে চায় এমন ব্যক্তিদের জন্য উপকারী।

নিজের গ্রাহকদের চেনা

আপনার গ্রাহক কারা? তাদের পেশা, ভৌগলিক অবস্থান, আগ্রহ কী? আপনার দর্শকদের সম্পর্কে আপনার অবশ্যই জেনে রাখা উচিত। আপনি আপনার শ্রোতাদের যত ভাল বুঝতে পারবেন, আপনার মার্রকেটিংয়ের কৌশলগুলি তত বেশি কার্যকর হবে।

সামাজিক প্লাটফর্ম ব্যাবহার

আপনি যখন সবে শুরু করছেন, তখন আমি সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির পুরো সুবিধা নেওয়ার পরামর্শ দিব। আপনার গ্রাহকের সাথে সম্পর্ক বাড়াতে, গ্রাহকের সাথে যোগাযোগ করতে এর যেমন গুরুত্ব আছে, তেমনি মার্কেটার হিসেবে জনগণের মন বুঝতেও সামাজিক প্লাটফর্ম আপনাকে অনেক কিছু শেখাবে। আপনার গ্রাহক এবং আপনি উভয়ই অন্য যে কোনও ধরণের প্ল্যাটফর্মের চেয়ে সামাজিক প্ল্যাটফর্মের সাথে আরও পরিচিত হবার সুযোগ পাবেন। বিক্রয়ের সুযোগ বাড়ানোর জন্য ফেসবুক বা ইনস্টাগ্রামের মতো সামাজিক প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করতে পারেন।

উৎকৃষ্ট বিষয়বস্তু তৈরি

যখন বিষয়বস্তু কথা আসে তখন সর্বদা চেষ্টা করুন পরিমাণের চেয়ে গুণমানটি বেছে নেওয়ায়। কারণ একটি ভাল মানের বিষয়বস্তু আপনাকে কয়েক ডজন সস্তা মানের বিষয়বস্তুর চেয়ে আরও দ্রুত সফলতা এনে দিতে সাহায্য করবে। অতএব, আপনার কাজ আপনার গ্রাহকের কাছে পৌছানোর আগে সর্বদা তার গুণগত মান নিশ্চিত করুন।

কখনও অলস বসে না থাকা

বিভিন্ন সময়ে অনেক নবাগত ডিজিটাল মার্কেটার আমাকে এসে আমাকে জিজ্ঞাসা করে যে, ‘ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে সাফল্যের গোপন রহস্য কী?’ প্রকৃতপক্ষে, এখানে কোনো রহস্যই নেই। আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিংকে ক্যারিয়ারের পথ হিসাবে বেছে নিতে চান তবে আপনাকে অবশ্যই এর “ইন’স এবং আউট’স” শিখতে হবে।

ইন্টারনেটে এমন অনেক সংস্থান আছে যা আপনাকে সাধারণভাবে বা ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কোনও নির্দিষ্ট সাইটে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে জ্ঞান লাভে সহায়তা করতে পারে। আগ্রহী ব্যক্তিদের জন্য বিনামূল্যে এবং অর্থ প্রদানকারী উভয় সংস্থানই উপলব্ধ রয়েছে, যেমন ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের কোর্স, সেমিনার, ওয়ার্কশপ, প্রশিক্ষণ সেশন ইত্যাদি।

তবে ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে জ্ঞান অর্জনের পরে আপনি আর বসে থাকতে পারবেন না। আপনি যা শিখেছেন তা কাজে লাগাতে আপনাকে অবশ্যই ব্যবহারিকভাবে কাজ করতে হবে। অন্যথায়, আপনার শেখার পরেও কোনও ভালো ফলাফল আসবে না। আপনার পর্যাপ্ত জ্ঞান অর্জনের পরপরই আমি আপনাকে মার্কেটে কাজ শুরু করার জন্য পরামর্শ দিবো। এইভাবে, ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে আপনি যে সময় এবং প্রচেষ্টা দিয়েছিলেন তা ইতিবাচক ফলাফল বয়ে আনবে।

সর্বদা হালনাগাদ তথ্য রাখা

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের জগতটি খুব গতিশীল। এর মানে একজন ডিজিটাল মার্কেটিং পেশাদার হিসাবে আপনাকে সর্বদা অর্থ, বর্তমান বিষয় এবং উল্লেখযোগ্য মার্কেটিংয়ের ট্রেন্ডগুলির সাথে হালনাগাদ তথ্য থাকতে হবে। একজন ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের পেশাদার কখনও বিশ্রামে থাকতে পারে না। আপনার অবশ্যই সবসময় নতুন ধারণার সন্ধান করা উচিত এবং আপনি যা করছেন সে ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত নতুনত্ব আনতে হবে। সৃজনশীলতা এবং নতুনত্ব ডিজিটাল বিপণনের মূল উপাদান। ডিজিটাল মার্কেটিং অন্যান্য পেশার মতো নয়। এটিতে আপনার গ্রাহকদের থেকে সর্বদা এক ধাপ এগিয়ে থাকার প্রয়োজন যাতে আপনি তাদের চাহিদা নির্ধারণ করতে এবং কার্যকর সেবা সরবরাহ করতে সক্ষম হন।

আমার ব্যক্তিগত ব্লগ smbelal.com তে আমি সবসময়ই ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে আগ্রহী এমন লোকদের জন্য কন্টেন্ট তৈরি করি। আমি মনে করি প্রত্যেকের তাদের নিজ নিজ জ্ঞান দ্বারা অন্যকে সাহায্য করার চেষ্টা করা উচিত কারণ এটি আত্মোন্নতিতেও বিশেষ ভূমিকা রাখে।

1111