মো. ওমর ফারুক: ফ্রিল্যান্সার থেকে শীর্ষস্থানীয় উদ্যোক্তা

Home Blog Single

মো. ওমর ফারুক: ফ্রিল্যান্সার থেকে শীর্ষস্থানীয় উদ্যোক্তা

মো. ওমর ফারুক একজন শিক্ষার্থী এবং একজন সফল উদ্যোক্তা।  স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের এর সময় পড়াশোনা করার পাশাপাশি ইন্টারন্যাশনাল সার্ভিসে কাজ করতেন। এ সময়ই তিনি কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার লক্ষ্যে প্রথম এ উদ্যোগ নেয়ার চিন্তা শুরু করেন। তার একজন উদ্যোক্তা হওয়ার পেছনের প্রধান অবদানকারী হিসাবে তিনি তার ফ্রিল্যান্সিংকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন।

ওমরের যাত্রা শুরু যেভাবে হয়েছিলো

২০০৯ সালে সর্বপ্রথম তার ইন্টারনেট জগতের সাথে পরিচিতি ঘটে । তথন তার কেবল 2জি ইন্টারনেট এবং জাভা ফিচারের একটি স্যামসং ফোন ছিল। এমনকি তখন তার কোনও কম্পিউটার ছিল না।  ৯ম শ্রেণিতে পড়াশোনাকালে তিনি তার বন্ধুদের মাধ্যমে ” মিগ ৩৩ ” নামে একটি সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ সম্পর্কে জানতে পারেন।  তিনি মিগ ৩৩ এর মাধ্যমে তার বন্ধুদের সাথে ঘুরে যোগাযোগ করতেন এবং অ্যাপটিতে বেশ কিছু আকর্ষণীয় ফিচার খুঁজে পেয়েছিলেন।  যে ফিচারটি তাকে সবচেয়ে বেশি মুগ্ধ করে সেটি হল “লেভেল” নামে একটি ফিচার। হাইয়ার লেভেলের ব্যবহারকারীরা অন্যের তুলনায় অনেক বেশি রেস্পেক্ট অর্জন করতেন।  তারপর তিনি একটি থার্ড পার্টি অ্যাপ পেয়েছিলেন যা তারও লেভেল বাড়িয়ে তুলছিলো। ওমর ফারুক সেই থার্ড পার্টি অ্যাপটি ব্যবহার করে ফ্লোয়ের সাথে চলতে থাকলেন, কিন্তু একসময় অ্যাপটি চার্জ দাবি শুরু করে। এ ব্যাপারটিতে তিনি  হতাশ হয়েছিলেন।  কিন্তু এসব সত্ত্বেও তার মনে একটি প্রশ্ন থেকেই যায় যে, এই থার্ড পার্টি অ্যাপটি কীভাবে কাজ করে?

নিজেকে আবিষ্কার করা

ওমর বলেন, ‘আমি এই থার্ড পার্টি অ্যাপটি কীভাবে কাজ করে তা সম্পর্কে আমার সিনিয়রদের জিজ্ঞাসা করতে শুরু করেছিলাম তবে তারা আমার প্রশ্নগুলি খুব কমই বুঝতে পেরেছিলেন।  একদিন একজন সিনিয়র আমাকে জানিয়েছিলেন যে থার্ড পার্টি অ্যাপটি ভিপিএস ব্যবহার করে এবং আরও জানতে চাইলে গুগলে  খুঁজে দেখতে বলেন।  আর আমি তাই করেছিলাম। গুগলে তথ্য পেয়ে আমি তখন অনেক অবাক হয়েছি কিন্তু শীঘ্রই আমি গুগলে দক্ষতার সাথে অনুসন্ধান করতে শিখে ফেলেছি। এরপর  আমি ভিপিএস সম্পর্কে আরও জানতে এবং শিখতে থাকি এবং বুঝতে পেরেছিলাম যে ভিপিএসের প্রক্রিয়াটি উপলব্ধি করার জন্য আমি অনেক কিছু শিখতে পারছি।  এভাবেই আমি আমার ফিল্ড অফ ইন্টারেস্টটি খুঁজে পেয়েছি।”

কেন এবং কিভাবে

ওমর ফারুক বলেন, ‘২০১১ সালে আমি আমার কৌতূহলের জন্য ইন্টারনেটে র‍্যান্ডম জিনিস অনুসন্ধান করতাম।”  তার আস্কিং টুলস সহজ ছিল – কী, কেন এবং কীভাবে।  কিছুক্ষণ পরে, তিনি মাইগ 33 এ আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন  এবং “ওয়েবসাইট” তার দৃষ্টি আকর্ষণ করে।  তার অবিরাম সঙ্গী গুগল এবং স্যামসাং ফোনের সাথে তিনি দিনরাত ব্রাউজ করার পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয় অনুসন্ধান করতেন।  আরও জানার জন্য, তার একটি কম্পিউটারের খুবই দরকার ছিল যা তিনি এসএসসির পরে পেয়েছিলেন।  কিন্তু, ইন্টারনেটের খরচ সেই দিনগুলিতে অনেক বেশি ছিল যা একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়ায়।

তার পরিবার তার এসকল খরচ সামলাতে অক্ষম হওয়ায় তিনি একটি আর্থিক সমস্যায় পড়েন।  তিনি অনলাইনে যে কোনও আয়ের জন্য উৎস অনুসন্ধান করতে শুরু করেছিলেন  এবং কিছু এলএমএল ওয়েবসাইট সম্পর্কে জানতে পারেন।  তবে এসকল ওয়েবসাইটগুলি সময় নষ্টের জিনিস ছাড়া কিছুই ছিল না।

এরপর “ইল্যান্স” নামে একটি সাইটে স্টিন্ট কাজ করার পরে তার একটি বড় উপলব্ধি হয়। তিনি কিছু না জেনে একটি ইল্যান্স অ্যাকাউন্ট খুললেন।  তিনি ভেবেছিলেন যে, কোনো অ্যাকাউন্ট খুলেই তিনি কোনভাবে অর্থ উপার্জন করবেন যা স্পষ্টতই সম্ভব ছিল না। একজনকে নিজের যোগ্যতার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে হয়,  ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলি নিছক মধ্যস্থতাকারী হিসাবে কাজ করে। এবং  তার কোনও যোগ্যতা না থাকার কারণে তার এই অনলাইন অর্থোপার্জনের মিশন ব্যর্থ হয়ে যায়।

শুরুতে  ফিরে দেখা

২০১৩ সালে এইচএসসি শেষ করার পরে ওমর ফারুক ভর্তি কোচিংয়ে ভর্তি হন।  তবে এটি নামমাত্র কারণ তার কম্পিউটারের আসক্তি আবার জেগে উঠে।  এই আসক্তিটি এত মারাত্মক ছিল যে তিনি মেডিকেল ভর্তিতে মারাত্মকভাবে ব্যর্থ হয়েছিলেন যা ছিলো একমাত্র ভর্তি পরীক্ষা যেটা তিনি এটেন্ড করেছিলেন ।

 তার বাবা অনড় হয়ে তাকে ফার্মাসি পড়ার জন্য একটি বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি করিয়ে দেন এবং শর্ত দিয়েছিলেন যে তার নিজের ব্যয় কিছুটা তাকেও বহন করতে হবে। সুতরাং, তিনি আবার অনলাইনে অর্থোপার্জনের সন্ধান শুরু করেছিলেন।

উইক্স ব্যবহার করে একটি ওয়েবসাইট বানানোর চেষ্টা করার পরে, একজন প্রযুক্তিবিদ তাকে “ওডেস্ক” ব্যবহার করার পরামর্শ দেন যেখানে তিনি এ সংক্রান্ত অনেকগুলি কাজ পেতে পারেন। তিনি ইউটিউবের মাধ্যমে এবং শেষ পর্যন্ত নিজের দৃঢ় ইচ্ছাশক্তির মাধ্যমে কীভাবে অনলাইনে কাজ করবেন তা শিখতে পেরেছিলেন।  “আপনাকে কেউ হাতে ধরে শিখিয়ে দিবে না, আপনাকে বিভিন্ন যায়গা থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে এবং নিজেই নিজেকে যোগ্য করে তুলতে হবে।”, ওমর গর্বের সাথে বলেন।

কর অথবা মর

 বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর তিনি একটি বিভ্রান্তির মধ্যে পড়ে যান। প্রথমত, তিনি অত্যন্ত দক্ষতার সাথে তার স্কিল অর্জন করেছিলেন। প্রচুর গবেষণার মাধ্যমে ওমর ফারুক ওয়েবসাইট ডিজাইনিংয়ের ব্যাসিক নলেজ শিখলেন। এই স্কিল তাকে ওডেস্ক থেকে কিছুটা প্রাথমিক উপার্জন যোগাড় করা সম্ভব করেছিল। সুতরাং, তিনি তার প্যাশনের জায়গায় আরো আত্মবিশ্বাস পেয়ে যান।

 অন্যদিকে, তার একাডেমিক পড়াশোনা বাধাগ্রস্ত হচ্ছিলো। তার সিজিপিএ গ্রেড কমতে থাকে। এবং তিনি বুঝতে পারেন, একটি বেছে নিতে হবে- ফার্মাসি বা আইটি। অনেক কষ্টের পরে তিনি তার পরিবারকে এই সমস্যাটি বোঝাতে সক্ষম হন। এবং তারপরে তিনি ফার্মেসি ছেড়ে আইটি ডিপার্টমেন্ট এ ভর্তি হন।

সব কাজ একত্রে হাতে নিবেন না

২০১৬ সালে ওমর ফারুকের সাথে সবকিছু ঠিকঠাক চলছিল। একটি ভালো একাডেমিক পারফরম্যান্স রাখার পাশাপাশি তিনি অনলাইনে বেশ ভাল পরিমাণ কাজ পাচ্ছিলেন। তিনি আরও ৩জনকে নিয়ে একটি দল তৈরি করেছিলেন। তবে কাজ পাওয়ার পরিমান কমে যাচ্ছিলো যখন তার এক ক্লায়েন্ট তার সাথে স্টিন্টের কারণে তাকে কাজে রেটিং এ ৫ এর পরিবর্তে ৪ দেয়। তিনি ৪ মাস ধরে কোনও কাজ পাননি সেই সাথে তার দলের সদস্যদের তাদের মাসিক বেতন দিতে হয়েছিল।

সুতরাং, তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে তাকে তার মার্কেটপ্লেস আরো বড় করতে হবে। তারপর তিনি বুঝতে পারেন কেন এ কথাটি সবাই বলে যে সব কাজে একত্রে হাত দিবেন না।

একজন উদ্যোক্তা হয়ে উঠা

২০১৬ সালে কঠিন সময় পার করার পরে ওমর ফারুক তার কাজের দিগন্ত প্রসারিত করেছেন।  তিনি বেশ কিছু দক্ষ প্ল্যান করেছিলেন।  তিনি মার্কেটপ্লেস, ফেসবুক, পেইড মার্কেটিং, আন্তর্জাতিক সংস্থার সাব এজেন্সির কাজ করে প্রকল্প সংগ্রহ করতে শুরু করেছিলেন।  তার এ পরিকল্পনা ব্যাপকভাবে কাজে দেয়! ২০১৮ সাল এর মধ্যে, তার মার্কেট গ্রোথ পুরো নতুন স্তরে পৌঁছে যায়।  সাত জন সদস্য নিয়ে তিনি “টেকনোফিক ল্যাব” নামে একটি স্টার্টআপ সংস্থা শুরু করেন।

ওমর ফারুক বলেন, “বর্তমানে আমরা আমাদের দেশ ও বিদেশের আইটি সংস্থাগুলিতে পরিষেবা সরবরাহ করছি, আমাদের নিজস্ব সংস্থা শুরু করা আমাদের স্বাবলম্বী করেছে। এখন আমাদের বাজারের উপর পুরোপুরি নির্ভর করতে হয় না”।  তার সংস্থা বিভিন্ন মাধ্যমে সরাসরি বিপণন করছে।  আর তার ব্যবসায়িক দিকেও বেশ উন্নতি হয়েছে।

ওমর ফারুক পড়াশুনায় কখনও খুব ভাল ছিলেন না। তিনিই তার এই সফল জার্নির মাধ্যমে প্রমাণ করেছেন যে কেবল পড়াশোনায় ভাল থাকা কারও সাফল্যের সংজ্ঞা দিতে পারে না।  প্রচন্ড প্যাশন এবং ইচ্ছাশক্তি নিয়ে কাজ করা যে কাউকে সফল করতে পারে।

আর তিনি তার গল্পটি শেষ করে শুধু বলেন, “আমরা কেবলমাত্র সর্বশক্তিমানের অনুগ্রহে সফল হয়ে উঠছি, আমি আশা করি এই অনুগ্রহ আমাদের সফলতা দীর্ঘায়িত করবে”

 

1111